মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯, ০৩:৪১ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
মাধবপুরে গলায় ফাঁস দিয়ে যুবকের আত্মহত্যা রাজনগরে বখাটে কতৃক কলেজছাত্রীকে ছুরিকাঘাতের ঘটনায় মানববন্ধন মৌলভীবাজারে শিক্ষানবীশ আইনজীবী কল্যাণ পরিষদের মানববন্ধন কুলাউড়া আওয়ামী লীগের কাউন্সিল, সভাপতি রেনু ও সাধারণ সম্পাদক কামরুল মৌলভীবাজারের রাজনগরে ৫ম শ্রেণির শিক্ষার্থী ধর্ষণের অনুসন্ধানী প্রতিবেদন।। বাড়ির মালিক জামাল মিয়া আটক।। দোষীদের গ্রেপ্তারের দাবীতে বৃহস্পতিবার স্কুল শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন সৈয়দপুরে প্রাইভেট কারের ধাক্কায় মহিলা নিহত, আহত ১ চুনারঘাটে বিষপানে যুবকের মৃত্যু ‘মিলাদুন্নবীর উছিলায় আল্লাহ তা’আলা ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষয়ক্ষতি কমিয়েছেন’ বিএনপির ১০ হাজার নেতাকর্মীর পদত্যাগের আল্টিমেটাম আসছে টাকার ওপর ঘুমিয়ে থাকা সেই এসআই ক্লোজড
মাদকবিরোধী অভিযানে ৪৬৬ জনকে বিচারবহির্ভূত হত্যা: অ্যামনেস্টি

মাদকবিরোধী অভিযানে ৪৬৬ জনকে বিচারবহির্ভূত হত্যা: অ্যামনেস্টি

চেকপোষ্ট ডেস্কঃ মাদকবিরোধী অভিযানের নামে গেল ১৮ মাসে ৪৬৬ জনকে বিচারবহির্ভূতভাবে হত্যা করা হয়েছে। বাংলাদেশের নিরাপত্তা বাহিনীর বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল।

সোমবার (৪ নভেম্বর) সংস্থাটি এই রিপোর্ট প্রকাশ করেছে।

প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, মাদকবিরোধী অভিযানের নামে বাংলাদেশে নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে গড়ে প্রতিদিন খুন হয়েছেন একজন। ‘কিল্ড ইন ‘ক্রসফায়ার’ : এলেগেশন্স অব এক্সট্রাজুডিশিয়াল ইক্সিকিউশন্স ইন বাংলাদেশ ইন দ্য গাইজ অব এ ওয়ার অন ড্রাগস’ শিরোনামে ২৫ পৃষ্ঠার প্রতিবেদনে নিরাপত্তা বাহিনীর বিরুদ্ধে জোরপূর্বক গুম করা, ভুয়া প্রমাণ তৈরির অভিযোগও আনা হয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, কথিত বন্দুকযুদ্ধে মৃত্যুর এসব ঘটনার তদন্ত করতে বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষ যে ব্যর্থ হয়েছে ওই প্রতিবেদনে তাও উঠে এসেছে।

তারা বলছে, ২০১৭ সালে মাদকবিরোধী অভিযানে সারাদেশে যতজন সন্দেহভাজন নিহত হয়েছিলেন, ২০১৮ সালে এসে তা বেড়েছে তিন গুণেরও বেশি।

আন্তর্জাতিক এ মানবাধিকার সংস্থার দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের উপ-পরিচালক দিনুশিকা দিশানায়েক বলেন, এই মাদকবিরোধী অভিযানে প্রতিদিন গড়ে অন্তত একজনের প্রাণ গেছে। সন্দেহভাজনদের গ্রেফতার করা হয়নি। কাউকে কাউকে বাড়ি থেকে জোর করে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। পরে স্বজনরা তাদের লাশ দেখেছেন মর্গে।

প্রতিবেদনে অভিযোগ করা হয়েছে, বিচারবহির্ভূত এসব হত্যার তদন্তের উদ্যোগ না নিয়ে কর্তৃপক্ষ তাদের ‘বন্দুকযুদ্ধ’ বা ‘ক্রসফায়ারের’ সমর্থনে ‘ভুয়া প্রমাণ’ তৈরির নির্দেশ দিয়েছে। আইনশৃঙ্খলাবাহিনী এসব ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে যাদের সামনে আনে, তারা তাদের কয়েকজনের সাক্ষাৎকার নিয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2018 Checkpost Media
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!