সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১১:২৫ অপরাহ্ন

নোটিশ:
দৈনিক চেকপোস্ট পত্রিকায় সারাদেশে জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হচ্ছে। সাংবাদিকতায় আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন। ছবিসহ জীবন বৃত্তান্ত ই-মেইল করুন-checkpost2015@gmail.com এ। প্রয়োজনে-০১৯৩১-৪৬১৩৬৪ নম্বরে কল করুন।
সংবাদ শিরোনাম:
মাধবপুরে আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সদস্য অভি গ্রেফতার চিঠি গল্প পর্ব ২ নীলফামারীতে মেয়েকে নিয়ে ট্রেনের নিচে লাফ দিয়ে মায়ের আত্মহনন দৈনিক নয়া দিগন্ত পত্রিকার বিরুদ্ধে সহকর্মীসহ আপত্তিকর অবস্থায় আটক; সৈয়দপুর কলেজ অধ্যক্ষের আইসিটি আইনে মামলা ৩৬ বছর পর হবিগঞ্জে খোয়াই নদীর উদ্ধার কাজ শুরু বিরল প্রজাতীর সাদা খরগোশ সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে অবমুক্ত চুনারুঘাটে দুইশ’ পিস ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ি আটক সৈয়দপুর কলেজে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ ॥ আপত্তিকর অবস্থায় আটক অধ্যক্ষ ও অধ্যাপিকাকে বহিস্কারের দাবি রোহিঙ্গা ধরতে নতুন কৌশলে ইসি প্রধানমন্ত্রীর সফরের সময় বিমানবন্দরে যাদের থাকতে হবে
সরকার কী চায়? প্রশ্ন ফখরুলের

সরকার কী চায়? প্রশ্ন ফখরুলের

চেকপোস্ট ডেস্ক:: কাউন্সিলের ওপর আদালতের স্থগিতাদেশের ঘটনাকে ‘নজিরবিহীন’ উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দাবি করেছেন, ছাত্রদলের বিষয়ে এখন পর্যন্ত যা কিছু হয়েছে তা আইন সম্মতভাবেই হয়েছে।

শুক্রবার (১৩ সেপ্টেম্বর) রাতে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্যদের সাথে সিনিয়র আইনজীবীদের বৈঠকের পর বিএনপি মহাসচিব এ কথা জানান।

মির্জা ফখরুল বলেন, ছাত্রদলের বিষয়ে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। আমাদের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানই পারেন এই সিদ্ধান্ত নিতে, তিনি নিয়েছেন। এটা সম্পূর্ণ লিগ্যাল। এখন পর্যন্ত যা হয়েছে কোনোটাই বেআইনি হয়নি, সব কিছুই আইনসম্মত হয়েছে।

ছাত্রদলের কাউন্সিলের বিষয় কি হবে প্রশ্ন করা হলে বিএনপি মহাসচিব বলেন, এটি ছাত্রদলের বিষয়। ছাত্রদলের বিষয়ে তারা আলোচনা করছে। তাদের (ছাত্রদল) সিদ্ধান্ত তারা নেবে। আমরা বিএনপি এর সঙ্গে কোনো মতেই জড়িত নই।

একই সঙ্গে বিএনপিকে পক্ষ করে আদালত যে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে তার জবাব দেবে বলে জানান ফখরুল।

তিনি বলেন, ‘আমাদের বিরুদ্ধে যেমন আমাদেরকে পক্ষ করা হয়েছে। আমরা আমাদের উত্তরগুলো আদালতের কাছে যথা সময়ে দেবো। সেই ব্যবস্থা নেবো। জবাবগুলো দিবো। তবে ছাত্র দলের সিদ্ধান্ত ছাত্র দলই নেবে, এখন যারা দায়িত্বে আছে তারাই বলবে।’

আগামী ১৪ সেপ্টেম্বর জাতীয়তাবাদী ছাত্র দলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে ভোটগ্রহণের কথা ছিল। সব প্রস্তুতি শেষ পর্যায়ে কাউন্সিলর কার্ড বিতরণের সময়কালে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটির বিদায়ী ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক আমান উল্লাহর একটি আবেদনে বৃহস্পতিবার ঢাকার জ্যেষ্ঠ সহকারি জজ নুসরাত জাহান এই স্থগিতাদেশ দেন।

আদালত এই কাউন্সিলের অস্থায়ী স্থগিতাদেশ দেওয়ার পাশাপাশি কেন্দ্রীয় সম্মেলন করার প্রশ্নে কারণ দর্শানোর নোটিশও দিয়েছে। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী ও নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহবায়ক খায়রুল কবির খোকনসহ ১০ বিবাদীকে ১০ দিনে নোটিশের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

বিএনপি মহাসচিব প্রশ্ন রেখে বলেন, ‘গতকাল রাতে সকলের অগোচরেই আদালতের এই স্থগিতাদেশ এসেছে। যেটা দ্যা প্রেসেস ইনসেলফ মিস্টিরিয়াস। বুঝা যায় এখানে সরাসরি সরকারের হস্তক্ষেপ আছে, হস্তক্ষেপ আছে বলেই এই স্থগিতাদেশ দেয়া হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে বর্তমান সরকার যারা আছেন যারা নির্বাচিত সরকার নয়, তাদের জবাবদিহিতা নেই তারা কী চান? তারা বাংলাদেশে গণতন্ত্রের কী গণতন্ত্রের একটা ন্যুনতম যে পরিস্থিতি-পরিবেশ থাকুক, না সেটা তারা চান না। দুঃখজনকভাবে তারা ব্যবহার করছেন আদালতকে। যেটা কখনোই কোনো গণতান্ত্রিক কোনো রাষ্ট্রের জন্য, জাতির ভবিষ্যতের জন্য শুভ হতে পারে না।’

মির্জা ফখরুল অভিযোগ করে বলেন, আজকে বর্তমান সরকার যে একটা রাজনৈতিক সংস্কৃতি তৈরি করছেন, এই সংস্কৃতি অত্যন্ত ভয়াবহ। আদালতকে দিয়ে রাজনীতিকে নিয়ন্ত্রণ করা। যেটা আমি মনে করি যে, অত্যন্ত ভয়াবহ একটা বিষয়।

ফখরুল বলেন, এই সরকার আদালতকে ব্যবহার করে তারা বিভিন্ন রকমের আইন-কানুন তৈরি করে মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার কেড়ে নিচ্ছে। বিগত নির্বাচনের সময়ে আপনারা দেখেছেন যে, কতজন প্রার্থীর প্রার্থিতা বাতিল করে দিয়েছেন। কীভাবে উপজেলা চেয়ারম্যান, সিটি করপোরেশনের মেয়র তাদের প্রার্থিতা বাতিল করে দেয়া হয়েছে যেটা আইনের মধ্যে একরকম আছে সেটাকে আদালতের মাধ্যমে বাতিল করে দেয়া হয়েছে। মেয়রদের বেলা আইনে বলা আছে তারা নির্বাচন করতে পারেন তবে নির্বাচিত হলে তারা ছেড়ে দেবেন। এটাকে সম্পূর্ণ ভায়োলেটেড করে তারা অন্য কাজ করেছেন।

বৈঠকে বিএনপির মহাসচিব ছাড়া স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মওদুদ আহমদ, জমিরউদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম আলমগীর ও আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন।

দলের আইনজীবীদের মধ্যে ছি্লেন, জয়নাল আবেদীন, এজে মোহাম্মদ আলী, নিতাই রায় চৌধুরী, মাহবুবউদ্দিন খোকন, মাসুদ আহমেদ তালুকদার, কায়সার কামাল, আসাদুজ্জামান আসাদ, ওমর ফারুক ফারুকী, জয়নাল আবেদীন মেজবাহ এবং সাবেক ছাত্র নেতাদের মধ্যে শামসুজ্জামান দুদু, ফজলুল হক মিলন, খায়রুল কবির খোকন, শহিদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, কামরুজ্জামান রতন, আজিজুল বারী হেলাল, শফিউল বারী বাবু, সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু, আমিরুল ইসলাম খান আলিম, আবদুল কাদের ভুঁইয়া জুয়েল, রাজিব আহসান ও আকরামুল হাসান প্রমুখ।

Print Friendly, PDF & Email

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2018 Checkpost Media
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!