শুক্রবার, ১০ Jul ২০২০, ০৫:০৬ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে আলোচনায় চেয়ারম্যান মুসা! চাল চুরির সত্যতা যাচাই বাচাই পূর্বক সু-ষ্পষ্ট মতামত দিতে জেলা প্রশাসককে নির্দেশ! ঢাকার বুকে মাটির ১১১ ফুট নিচে হচ্ছে পাতালরেল হবিগঞ্জে গরুর খামারে সফল কাউসার মিয়া শায়েস্তাগঞ্জে আটটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ১০৭ জন শিক্ষক- কর্মচারী প্রনোদনা পেল আ’লীগকে ক্ষমতায় রাখতেই দল নিবন্ধন আইন করার উদ্যোগ সন্তান দত্তক নিয়ে গৃহকর্মী বানালেন বাবা-মা সাহারা খাতুনের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন আর নেই চুনারুঘাটে ত্রান সহায়তা দিলেন সহোদর দুই ভাই ঈশ্বরদী থানার নবাগত ওসির সাথে সাংবাদিকদের মতবিনিময় সভা
লাখাই থানার এএসআই তোহা-সাদ্দামের ভুমিকায় খুশি সাধারণ মানুষ

লাখাই থানার এএসআই তোহা-সাদ্দামের ভুমিকায় খুশি সাধারণ মানুষ

চেকপোস্ট প্রতিনিধি:: লাখাই থানার দুই এএসআই-এর কঠোর পদক্ষেপে সুফল পেয়েছেন উপজেলাবাসী। চুরি, ছিনতাই, ডাকাতিসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ন্ত্রণে জোরালো ভুমিকা পালন করেছেন এই দুই এএসআই। জনগনের জানমাল নিরাপত্তায় দিনরাত কঠোর পরিশ্রম করে জায়গা করে নিয়েছেন উপজেলাবাসীর হৃদয়ে।

সূত্রে জানা যায়- ২০১৮ সালের শেষের দিকে পৃথক সময়ে লাখাই থানায় এএসআই হিসেবে যোগদান করেন মো. তোহা ও মোহাম্মদ সাদ্দাম হোসেন। যোগদানের পূর্বে লাখাই উপজেলার বিভিন্ন স্থানে চুরি-ডাকাতির ঘটনা ঘটত। তারা দুইজন যোগদান করার পর প্রথম অবস্থাতেই চিহ্নিত ডাকাতদের তালিকা সংগ্রহ করে গ্রেফতার করেন। অনেক সময় ডাকাত ধরতে গিয়ে হামলার শিকার হয়েছেন তারা। ফলে সম্পূর্ণভাবে ডাকাতির আতঙ্ক থেকে মুক্তি পান উপজেলার মানুষ। এক সময় সন্ধ্যার পর হবিগঞ্জ-লাখাই সড়কে চলতে সাধারণ মানুষ ভয় পেলেও এখন মধ্যরাতেও একা একা যে কেউ এই সড়ক দিয়ে নির্ভয়ে চলাচল করতে পারেন। এছাড়া বেশ কিছু গুরত্বপুর্ণ মামলা ও বহুল আলোচিত ঘটনার জট খোলেছে তাদের দক্ষতায়। মাদক ব্যবসায়িরাও তাদের আতঙ্কে বন্ধ করেছে অবাধ বিচরণ।

এদিকে, করোনা পরিস্থিতি দিনরাত এক করে মানুষকে সচেতন করার কাজে নিজেদের উৎসর্গ করেছেন তারা দুজনে। শহর থেকে গ্রামে ছুটে চলেছেন উপজেলাবাসীকে করোনা থেকে দূরে রাখতে।

এলাকার অনেক সচেতন ব্যক্তিরা বলছেন- এমন দুইজন চৌখুস পুলিশ কর্মকর্তার জন্য লাখাইয়ের মানুষ অনেকটা নিরাপদে ঘুমাতে পারছেন। সবগুলো পরিস্থিতিতেই তাদের পরিকল্পিত পদক্ষেপ মানুষকে দিয়েছে স্বস্তি। তাই অন্য সকল পুলিশ কর্মকর্তাদেরকেও এভাবে নিরলসভাবে কাজ করার আহবান জানিয়েছেন তারা।

এ ব্যাপারে এএসআই মো. তোহা ও সাদ্দাম বলেন- মানুষের সেবা করার জন্যই পুলিশের পেশাটিকে বেচে নিয়েছি। মানুষের নিরাপত্ত দিতে পারলে নিজেদের মধ্যে যেমন প্রশান্তি আসি তেমনি নিজেদে আরও দ্বায়িত্বশলি করে তুলে। সারা জীবন মানুষের সেবক হয়ে কাজ করতে চাই।’

তারা বলেন- ‘করোনা পরিস্থিতিতে সবচেয়ে বেশি কষ্ট হয়েছে। অনেক মানুষকে লকডাউনের আওতায় আনতে গিয়ে হয়রাণীর শিকার হতে হয়েছে। তবুও লাখাইয়ে ঢাকা ফেরত এতসব মানুষ আসার পরও করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে পেরেছি সেটা ভাবলে ভালো লাগে।’

Print Friendly, PDF & Email

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2018 Checkpost Media
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!