শুক্রবার, ১০ Jul ২০২০, ০৫:১৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে আলোচনায় চেয়ারম্যান মুসা! চাল চুরির সত্যতা যাচাই বাচাই পূর্বক সু-ষ্পষ্ট মতামত দিতে জেলা প্রশাসককে নির্দেশ! ঢাকার বুকে মাটির ১১১ ফুট নিচে হচ্ছে পাতালরেল হবিগঞ্জে গরুর খামারে সফল কাউসার মিয়া শায়েস্তাগঞ্জে আটটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ১০৭ জন শিক্ষক- কর্মচারী প্রনোদনা পেল আ’লীগকে ক্ষমতায় রাখতেই দল নিবন্ধন আইন করার উদ্যোগ সন্তান দত্তক নিয়ে গৃহকর্মী বানালেন বাবা-মা সাহারা খাতুনের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন আর নেই চুনারুঘাটে ত্রান সহায়তা দিলেন সহোদর দুই ভাই ঈশ্বরদী থানার নবাগত ওসির সাথে সাংবাদিকদের মতবিনিময় সভা
রাজনগরের সন্তান ডা শাহজাদ হোসেনের আবেগঘন স্ট্যাটাস

রাজনগরের সন্তান ডা শাহজাদ হোসেনের আবেগঘন স্ট্যাটাস

আমি এখানে একটা পোষ্ট দিতে চাই। আমার আত্মীয়রা ছাড়া কেউ আমাকে চিনবেন না। কারন বাবার চাকরীর জন্য জন্ম থেকেই আমি সিলেটের বাইরে ছিলাম। মাঝে বছর দশেক আমি মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে কাজ করেছি, এনেসথেশিয়া বিভাগের প্রধান হিসাবে। ২০০৪ থেকে ২০১৩ পর্যন্ত। তখন কেউ কেউ আমার সাথে পরিচিত হয়েছেন। আমি ২০১৩ সন থেকে ঢাকায় সরকারি কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে এনেসথেশিয়া বিভাগের প্রধান হিসাবে কাজ করছি

মার্চ মাসের শুরুতে এই হাসপাতালকে করোনা চিকিৎসার জন্য নির্দিষ্ট করা হয়। তখন থেকে আমি এই হাসপাতালের সবচেয়ে সংবেদনশীল বিভাগের প্রধান হিসাবে কাজ করছি। আমার নেতৃত্বে এই আই সি ইউ তে চল্লিশজন চিকিৎসক ও পয়তাল্লিশজন নার্স কোভিড রোগিদের নিবিড় চিকিৎসা দিয়ে আসছেন। এই সময়কালে আমি সকল ভয়ভীতি ত্যাগ করে রোগিদের সেবায় আত্মনিয়োগ করেছি। আমি জানি যেকোন সময় আক্রান্ত হতে পারি এবং বয়স ও শারীরিক কারনে মৃত্যুর মুখোমুখি হতে পারি। তবু কখনোই আমি আমার কর্তব্যে বিন্দুমাত্র অবহেলা করিনি।

আমি এই গ্রামের সন্তান। আমার বাবার নাম সুরুজ মিয়া। যাঁকে অনেকেই দারোগা সাহেব বলে জানেন। এই গ্রামে আমাদের পৈতৃক ভিটা। বাড়ীর সামনে দীঘির পারে আমাদের পারিবারিক কবরস্থান। যেখানে আমার মা, চাচা, চাচী চিরনিদ্রায় শায়িত। আমার দায়িত্বের কারনে আমি যদি মৃত্যু বরন করি আমার কোন আফসোস নেই, আমি ধরে নিব আল্লাহ আমার জন্য এটাই নির্ধারিত রেখেছেন। সরকারী নিয়ম অনুযায়ী আমার দাফন আন্জুমানে মফিদুল ইসলাম সরকার নির্ধারিত কবরস্থানে করার কথা। কিন্তু আপনাদের কাছে আমার আবেদন, যদি এটা ঘটেই তবে গ্রামবাসী যেন আমার কবরটি আমার পারিবারিক গোরস্থানে করার অনুমতি দেন। আমার আর কিছুই চাওয়ার নেই। দেশের জন্য আমার কর্তব্যের বিনিময়ে আমি আপনাদের কাছে এইটুকু চাই। আমার পরিবার করোনা ছড়াবে না এরকম নিরাপদভাবে এই ব্যাবস্থা করতে সক্ষম হবেন। আশা করি আমার লেখাটি এডমিন এখানে পোষ্ট করবেন। আমার জন্য দোয়া করবেন যেন আমি আপনাদের গর্বিত করতে পারি। সকলের মঙ্গল কামনা করি।

ডা শাহজাদ হোসেন।
বিভাগীয় প্রধান
এনেসথেশিয়লজি ও আই সি ইউ বিভাগ
কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল
এয়ারপোরট রোড
ঢাকা।

লেখাটি ছফু আহমদের ফেইসবুক ওয়াল থেকে নেয়া।

Print Friendly, PDF & Email

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2018 Checkpost Media
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!