বৃহস্পতিবার, ০৪ Jun ২০২০, ১০:২১ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
চুনারুঘাট উপজেলা সাংবাদিক ফোরামের পূর্ণাঙ্গ কমিটির অনুমোদন এক বছর আগে মরে যাওয়া মৃত ব্যক্তিদের নামে বয়স্কভাতা তুলছেন ইউপি সদস্য নবীগঞ্জে প্রথম করোনা উপসর্গ নিয়ে মহিলার মৃত্যু শায়েস্তাগঞ্জে ১০৮টি মসজিদে ৫ হাজার টাকা করে অনুদান শায়েস্তাগঞ্জে টানা বর্ষনে পানিবন্দী দুই গ্রামের কয়েক হাজার পরিবার হবিগঞ্জে লাখাইয়ে প্রতিবন্ধী পান্নার পরিবারকে ইজিবাইক প্রদান লাখাইয়ে মুড়িয়াউক ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম মলাইকে সাময়িক বরখাস্ত সৈয়দপুর পৌর মেয়রের উদ্যোগে অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্ত ৯ পরিবারকে সহায়তা চেক প্রদান মাধবপুরে সরকারি শর্ত মেনে দোকান-মার্কেট খুললেও ক্রেতা নেই আজমিরীগঞ্জে মাছ ধরতে গিয়ে বজ্রপাতে কিশোরের মৃত্যু
প্রসবজনিত ফিস্টুলা লুকানো নয়, নির্মূল করা জরুরী

প্রসবজনিত ফিস্টুলা লুকানো নয়, নির্মূল করা জরুরী

স্বাস্থ্য ডেস্ক:: প্রসবজনিত ফিস্টুলা একটি মর্মান্তিক নারী স্বাস্থ্য সমস্যা। আমাদের দেশে এখনও অনেক মহিলা প্রসবজনিত ফিস্টুলায় ভোগে থাকেন। বিলম্বিত ও বাধাগ্রস্ত প্রসবের কারণে সৃষ্ট ক্ষতের মধ্য দিয়ে প্রসব পথে অনরবত প্রসব বা পায়খানা বা উভয়ই ঝরাকে প্রসবজনিত ফিস্টুলা বলা হয়। এই সমস্যার পাশাপাশি প্রসবজনিত ফিস্টুলা রোগীরা আরো অনেক শারীরিক সমস্যায় ভোগতে পারেন, তবে তারা সামাজিকভাবে যে অবহেলা এবং অবমাননার শিকার হন তা তাদের জীবনকে দুর্বিসহ করে তোলে।
সিআইপিআরবি গত বছর থেকে সিলেট বিভাগে ফিস্টুলা নির্মূল কার্যক্রম পরিচালনায় সহায়তা করে আসছে। ইউএনএফপিএ’র অর্থায়নে বাস্তবায়নাধীন প্রকল্পের আওতায় সিলেট বিভাগে অনেক রোগীদের চিকিৎসা ও পুনর্বাসনে সহায়তা করা হচ্ছে।
সিআইপিআরবি বিগত বছর যাবত ফিস্টুলা রোগীদের চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নিয়ে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে চিকিৎসা করতে সহায়তা করছে। ফিস্টুলা রোগীকে চিকিৎসার জন্য তেমন কোনো টাকা-পয়সা খরচ করতে হয় না। একেবারে বিনামূল্যে তাদের চিকিৎসা সহায়তা করে দেওয়া হয়। এমনকি ঢাকায় যাওয়া-আসার যাতায়াত ভাড়াও সিআইপিআরবি’র মাধ্যমে প্রদান করা হয়। গত বছর হবিগঞ্জ জেলা থেকে সিআইপিআরবি’র সহায়তায় ৮জন ফিস্টুলা রোগী ঢাকায় রেফার করা হলে, ৬জন পুরোপুরি এখন সুস্থ এবং বাকি ২জনের দ্বিতীয় ধাপে অপারেশন প্রয়োজন হচ্ছে। এছাড়া, ৬জন রোগীকে সরকারের বিভিন্ন দপ্তর ও  সংস্থার সাথে যোগাযোগের মাধ্যমে পূনর্বাসনে সহায়তা করা হয়েছে।
সরকার ২০৩০ সালের মধ্যে দেশ থেকে প্রসবজনিত ফিস্টুলা নির্মূল ও সকল মহিলাজনিত ফিস্টুলা রোগীদের স্বাস্থ্য সেবা ব্যবস্থার আওতায় আনতে বদ্ধপরিকর। এ লক্ষ্যে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানসমূহ নিরলস চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। বিশেষজ্ঞদের মতে, বাংলাদেশ আনুমানিক ২০ হাজার নারী প্রসবজনিত ফিস্টুলায় ভুগেছেন।
জানা যায়, প্রসবজনিত ফিস্টুলা শতভাগ প্রতিরোধযোগ্য। ফিস্টুলা দূর করেতে প্রতিরোধই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। সেক্ষেত্রে, প্রসবকালে সব নারীর পাশে দক্ষ সেবাদানকারী নার্স ও মিডওয়াইফ এর উপস্থিতি নিশ্চিত করা এবং প্রসবজনিত জটিলতায় জরুরী সেবা দেওয়ার মাধ্যমে ফিস্টুলাকে প্রায় নির্মূল করা যেতে পারে। বাল্য বিয়েকে ফিস্টুলার অন্যতম কারণ বলা হয়। বাল্য বিয়ে বন্ধে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। কম বয়সে গর্ভধারণ করলে ফিস্টুলা হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়। এছাড়াও মেয়েদের ১৮ বছরের আগে বিয়ে না দেয়া, বিয়ের পর জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি ব্যবহার করা এবং কমপক্ষে ৩ বছর গর্ভধারণ থেকে বিরত থাকা, ২১ বছরের আগে সন্তান ধারণ না করা, গর্ভধারনের পর নিয়মিত চেকআপে থাকা এবং হাসপাতালে প্রসব করানো এবং প্রয়োজন অনুসারে ব্যবস্থা নিলে ফিস্টুলা প্রতিরোধ হতে পারে।
প্রসবজনিত ফিস্টুলা একটি মর্মান্তিক নারী স্বাস্থ্য সমস্যা। বাংলাদেশে হাজার হাজার মহিলা এই নিদারুণ ব্যাধিতে ভুগছেন। মা ও শিশু স্বাস্থ্যখাতে ধারাবাহিক অগ্রগতির প্রেক্ষিতে বাংলাদেশে প্রসবজনিত ফিস্টুলার প্রকোপ অনেকটাই হ্রাস পেয়েছে। প্রসবজনিত ফিস্টুলা প্রতিরোধের ক্ষেত্রে পরিবার পরিকল্পনা খুবই সহায়ক। বাল্যবিবাহ রোধ, উপযুক্ত বিরতিতে সন্তান গ্রহন প্রসবজনিত ফিস্টুলা প্রতিরোধে ব্যাপক অবদান রাখতে পারে।এইরোগের স্বাস্হ সেবার জন্য এলাকাবাসী হবিগন্জ  সদর  হাসপাতালে  যোগাযোগ  করতে  পারবেন।
Print Friendly, PDF & Email

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2018 Checkpost Media
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!