শুক্রবার, ০৩ এপ্রিল ২০২০, ১১:১৪ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
ঈশ্বরদীতে করোনা আতঙ্কে পাল্টেছে শহরের দৃশ্যপট, গ্রামের দৃশ্য আগের মতই তাজরীনের আহত শ্রমিকদের পাশে আশুলিয়ার যুবলীগ নেতা রাজন তজুমদ্দিনের মেঘনায় দৌলতখানের ১৯ জেলে আটক; ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানা জলঢাকায় ৫৮ বোতল ফেন্সিডিলসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক ডোমারে সরকারী নির্দেশ অমান্য করায় ব্যবসায়ীর ৩০ হাজার টাকা জরিমানা আজমিরীগঞ্জে দিনমজুর অসহায়দের মাঝে চিকিৎসকের খাদ্য সামগ্রী বিতরন মোঃজাহাঙ্গীর আলম নিজ ঊদ্দোগে হতদরিদ্রের মাঝে এাণ বিতরণ করলেন সুতাং জাগরণী সংসদের উদ্যোগে বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ মাধবপুরে নো থ্যাংকস সামাজিক সংগঠনের উদ্যোগে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ সৈয়দপুরে ২ হাজার দরিদ্র পরিবারকে অর্থ সহায়তা প্রদান
খালেদা জিয়ার মুক্তিতে পরিস্থিতি স্বাভাবিক দেখছেন ড. কামাল

খালেদা জিয়ার মুক্তিতে পরিস্থিতি স্বাভাবিক দেখছেন ড. কামাল

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ২০১৮ সালের ১৩ অক্টোবর রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবে ঘটা করে সংবাদ সম্মেলনের মধ্য দিয়ে আত্মপ্রকাশ করেছিল জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া কারাগারে থাকায় বিরোধী রাজনীতির মঞ্চে প্রধান নেতা হিসেবে আবির্ভূত হয়েছিলেন গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন। এরপর পুরো আড়াই বছর ধরে নানা সময়ে খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করেছেন তিনি, বলেছেন ন্যায্য কারণেই তার মুক্তি প্রয়োজন। উপরন্তু, খালেদা জিয়ার মামলায় আন্তর্জাতিক এই আইনজ্ঞের আইনজীবী হওয়ার প্রস্তাব নীরবতার সঙ্গে প্রত্যাখ্যান করেছে বিএনপি। দলটির এই আচরণ নিয়ে নিজের অভিব্যক্তি কখনও প্রকাশ্যে আনেননি কামাল হোসেন। বরং মঙ্গলবার (২৫ মার্চ) গণমাধ্যমের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে বলেন, ‘আমি শুনেছি। তিনি তো নিশ্চয়ই এক-দুদিনে বেরোবেন। এটা তো ভালো উদ্যোগ। পরিস্থিতি একটু নরমালিইজড করা যাবে।’

মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে নিজের বেইলি রোডের বাসাতেই ছিলেন কামাল হোসেন। খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টি রাজনীতিতে কী প্রভাব ফেলবে, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বললেন, ‘কালকে (বুধবার) বুঝা যাবে প্রতিক্রিয়া কী।’

পরিস্থিতি ‘নরমাইলাইজডের’ ব্যাখ্যা জানতে চাইলে কামাল হোসেন বলেন, ‘বাংলাদেশ করোনাভাইরাসের মুখোমুখি। ইতোমধ্যে দলের পক্ষ থেকে আমরা জানিয়েছি সরকারকে, এটা মোকাবিলা করতে হবে। করোনায় আমি নিজে অফিসে যেতে পারছি না।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের এটাকে মনিটর করতে হবে, যেখানে ঘাটতি হচ্ছে দৃষ্টি আকর্ষণ করা। অন্য যে সাজেশন্সগুলো আসবে সেগুলোকে সাপোর্ট করা। অনেকের সঙ্গে কথা বলবো।’ কামাল হোসেনকে অনেকবারই খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে কথা বলতে হয়েছে। কখনও কখনও বিএনপির নেতাকর্মীরা ঐক্যফ্রন্টের ঘরোয়া সমাবেশে তাকে বিষয়টি উল্লেখ করে চাপও দিয়েছেন, বলে জানান গণফোরামের একজন গুরুত্বপূর্ণ নেতা।

গত বছরের ২০ অক্টোবর ফ্রন্টের সভায় কামাল হোসেনসহ নেতারা কারাবন্দি খালেদা জিয়াকে দেখতে বিএসএমএমইউতে যাবেন, এমন সিদ্ধান্ত হলেও পরে দফায়-দফায় এ সিদ্ধান্ত পাল্টেছে ফ্রন্ট। অনেকের অভিযোগ, বিএনপির অনীহাতেই ওই সাক্ষাৎ ঘটেনি। এ নিয়ে  বিশেষ প্রতিবেদন ছিল- খালেদা জিয়া-ড. কামাল সাক্ষাৎ অনিশ্চিত ।

দলটির প্রভাবশালী একনেতার ভাষ্য— কামাল হোসেনের পক্ষ থেকে আদালতে যেতে কয়েকবারই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এমনকি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীও একাধিকবার উদ্যোগ নিয়েছেন আ স ম রব ও মাহমুদুর রহমান মান্নাকে নিয়ে। কিন্তু বিএনপির আইনজীবীরা গা করেনি। যদিও এ বিষয়টি নিয়ে গণফোরামের কোনও নেতাই মুখ খুলতে নারাজ। তবে এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে বিভিন্নসময় ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী জানিয়েছেন, বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুলকে একাধিকবার এ বিষয়ে অবগত করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে ড. কামাল হোসেন (ফাইল ফটো)গণফোরামের একজন নেতা আগাম সম্ভাবনা জানালেন, সরকারের পক্ষ থেকে পূর্ণাঙ্গ বিবৃতি পাওয়ার পর খালেদা জিয়ার বিষয়ে কিছু উদ্যোগ নিতে পারেন কামাল হোসেন। এক্ষেত্রে অসুস্থ খালেদা জিয়াকে দেখতে তার গুলশানের বাসাতে একবার ঢু দিতে পারেন তিনি। তবে, করোনাভাইরাসের বিশেষ এই পরিস্থিতিতে সবকিছুতে সরকারের সিদ্ধান্তের প্রভাব থাকবে, এমন কথাও জানান এই নেতা।

ইতোমধ্যে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম সংগঠক আ স ম রব বলেছেন, দীর্ঘদিন পর সরকারের শুভবুদ্ধির উদয় হয়েছে। সরকারের এই্ উদ্যোগ প্রশংসনীয়। খালেদা জিয়ার মুক্তির মধ্য দিয়ে করোনাভাইরাসের এই বিশেষ মুহূর্তে সারাদেশের মানুষের মধ্যে জাতীয় ঐক্য প্রতিষ্ঠার বিষয়টি ত্বরান্বিত হবে।’

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি পুরনো ঢাকার নাজিম উদ্দিন রোডের কারাগারে পাঠানো হয় খালেদা জিয়াকে। ওই বছরের ১ এপ্রিল তার স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য গঠিত বিশেষ মেডিক্যাল বোর্ড কারাগারে গিয়ে সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে। এরপর ৭ এপ্রিল বেলা ১১টা ২০ মিনিটে নাজিমুদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে বের করে তাকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) নেওয়া হয়। ওইদিন কেবিন ব্লকের ৫১২ নম্বর কক্ষে অবস্থান করেন খালেদা জিয়া। সেদিনই তাকে ফিরিয়ে নেওয়া কারাগারে। এরপর ২০১৮ সালের ৪ অক্টোবর বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে বিএসএমএমইউতে ভর্তি করতে ও চিকিৎসাসেবা শুরু করতে পাঁচ সদস্যের একটি বোর্ড গঠন করার নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। দুই দিন পর ২০১৮ সালের ৬ অক্টোবর বিকাল পৌনে চারটার দিকে তাকে বিএসএমএমইউতে আনা হয়। চূড়ান্তভাবে ২০১৯ সালের ১ এপ্রিল দুপুর ১২টা ২০ মিনিটের দিকে পুরনো ঢাকার নাজিম উদ্দিন রোডের কারাগার থেকে বিএসএমএমইউতে ভর্তি করানো হয় তাকে। সেদিন থেকে তিনি বিএসএমএমইউতে চিকিৎসাধীন আছেন।

Print Friendly, PDF & Email

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2018 Checkpost Media
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!