বৃহস্পতিবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৯, ০৩:৫৭ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
কুলিয়ারচরে এমপিওভুক্ত হল ৩ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ১ নভেম্বর থেকে কার্যকর হচ্ছে সড়ক পরিবহন আইন ক্যাসিনো সংশ্লিষ্ট ২২ জনের বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা জারি কারাগারে নওয়াজ শরিফকে বিষ দেওয়া হচ্ছে, ছেলের অভিযোগ চট্টগ্রাম মিরসরাইয়ের নতুন চারটি মাদ্রাসা এমপিওভুক্ত কুলিয়ারচরে একটি রাস্তা নির্মাণের দাবী দীর্ঘ দিনের মাতুয়ারকান্দা বাসীর আমিই পৃথিবীর ইতিহাসে সবচেয়ে উন্নত মানুষ : ট্রাম্প মৌলভীবাজারে মাদক,সন্ত্রাস,জঙ্গিবাদ ও গুজব সম্পর্কে সচেতনতামূলক মতিবিনিময় সভা কুলিয়ারচর উপজেলা কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতি লিঃ এর নির্বাচন অনুষ্ঠিত মৌলভীবাজারের রাজনগরে ৩ কিঃমিঃ নতুন বিদ্যুৎ সংযোগ লাইনের উদ্ভোধন
উৎসবের মাধ্যমে দখলমুুক্ত করা হলো নীলফামারীর ডোমারের দেওনাই নদী

উৎসবের মাধ্যমে দখলমুুক্ত করা হলো নীলফামারীর ডোমারের দেওনাই নদী

উৎসবের মাধ্যমে দখলমুুক্ত করা হলো

নীলফামারীর ডোমারের দেওনাই নদী

শাহজাহান আলী মনন, নীলফামারী জেলা প্রতিনিধি:: গত ২৩ ফেব্রুয়ারী শনিবার দুপুরে জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান ডঃ মজিবুর রহমান হাওলাদার নীলফামারী জেলার ডোমার উপজেলার হরিণচড়া ইউনিয়নের শেওটগাড়ী এলাকার দেওনাই নদীর তীরে গিয়ে সহ¯্রাধিক এলাকাবাসী সাথে নিয়ে দেওনাই নদীটি দখল মুক্ত করার ঘোষনা দিয়েছেন। এসময় হাজার হাজার মানুষ উপস্থিতিতে নদী দখলমুক্ত অনুষ্ঠান এক উৎসবে পরিনত হয়।

দেওনাই নদী দখলমুক্ত করার পর নদীর পাশেই বেগম রোকেয়া বিশ^বিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক ড. তুহিন ওয়াদুদের সভাপতিত্বে জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মজিবুর রহমান হাওলাদার আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে এক আলোচনা সভায় অংশ নেন।

আলোচনা সভায় জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মজিবুর রহমান হাওলাদার বলেন, নদীর মালিক দেশের জনগন। কেউ দখল করতে চাইলে তা হতে দেওয়া হবে না। তিনি আরো বলেন, সারাদেশে নদী দখলমুক্ত ও রক্ষার কাজ শুরু হয়েছে। কিন্তু এভাবে হাজার হাজার সাধারন মানুষের নদী দখল মুক্ত উৎসব দেশের কোথাও হয় নাই। এটিই দেশে প্রথম। আমরা চাই সারা দেশের মানুষ এভাবেই নদী দখল মুক্ত করতে এগিয়ে আসুক।

আলোচনা সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, জাতীয় নদী কমিশনের সার্বক্ষনিক সদস্য আলাউদ্দিন, অতিরিক্ত  জেলা প্রশাসক শাহিনুর আলম, নীলফামারী পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল আল মামুন, ডোমার উপজেলায় নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মে ফাতিমা প্রমূখ।

দেওনাই নদী সুরক্ষা কমিটির আহবায়ক আব্দুল ওয়াদুদ জানান, দীর্ঘদিন হতে কিছু প্রভাবশালী নদীর মাঝখানে বাঁশের চাটাই দিয়ে মাছ চাষ করে নদী দখল করে রাখে। আর জেলেরা মাছ ধরতে গেলে তাদের মারধর দিয়ে তাদেরেই নামে মিথ্যা মামলা দেয়। তখন আমরা এলাকাবাসী জেলেদের সাথে নিয়ে নদী দখলমুক্ত করতে মানববন্ধন, সভা, সমাবেশসহ বিভিন্ন কর্মসুচী পালন করি। সর্বশেষ আজ নদীটি দখল মুক্ত হলো। আমরা আজ উৎসবের মাধ্যমে নদীটি দখলমুক্ত করলাম।

উল্লেখ্য, দীর্ঘদিন হতে ইজারার নামে কিছু দখলদার গায়ের জোরে নীলফামারীর ডোমার উপজেলার উপর বহমান দেওনাই নদীটি দখল করে মাছ চাষ করছিল। আর ওই নদীর উপর নির্ভরশীল মৎস্যজীবীরা নদীতে মাছ ধরতে গেলেই দখলদাররা তাদের মারধর দিয়ে তাড়িয়ে দিয়ে মামলায় জড়িয়ে ফেলে। এতে প্রায় শতাধিক  জেলে পরিবার হারিয়ে ফেলে তাদের বাপ-দাদার রেখে যাওয়া একমাত্র কর্ম। এরই প্রেক্ষিতে এলাকাবাসী জেলে পরিবারগুলোকে সাথে নিয়ে নদী দখলমুক্ত করতে দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন কর্মসুচী পালন করে আসছিলেন। এরই অংশ হিসাবে অভিযান পরিচালনা করে নদীটি দখলমুক্ত ঘোষণা করা হয়।

Print Friendly, PDF & Email

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2018 Checkpost Media
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!